পার্বত্য চট্টগ্রামে ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক শাসন বিষয়ে কুদুকছড়িতে আলোচনা সভা

0
102

রাঙামাটি প্রতিনিধি ।। রাঙামাটি সদর উপজেলার কুদুকছড়িতে গতকাল ১ আগস্ট ২০২১, রবিবার “পার্বত্য চট্টগ্রামকে তথাকথিত জেলায় উন্নীতকরণের নামে বৃটিশ উপিনিবেশিক শাসনের (১৮৬০-১৯৪৭) করুন অধ্যায়:  আমাদের উপলব্ধি ও শিক্ষা শীর্ষক এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ, হিল উইমেন্স ফেডারেশন ও গণতান্ত্রিক যুব ফোরাম যৌথভাবে এই আলোচনা সভার আয়োজন করে।

সভায় পিসিপি রাঙামাটি জেলার সাধারণ সম্পাদক তনুময় চাকমার সঞ্চালনায় ও গণতান্ত্রিক যুব ফোরাম রাঙ্গামাটি জেলার আহবায়ক ধর্মচিং চাকমার সভাপতিত্বে আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন ইউপিডিএফ রাঙামাটি সদর উপজেলা সমন্বয়ক উদয় চাকমা, বৃহত্তর পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ (পিসিপি) কেন্দ্রীয় সহ- সভাপতি অংকন চাকমা, গণতান্ত্রিক যুব ফোরামের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক জিকো ত্রিপুরা, হিল উইমেন্স ফেডারেশন রাঙামাটি জেলা শাখার সদস্য রিমি চাকমা ও গনতান্ত্রিক যুব ফোরামের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক থুইক্যচিং মারমা।

আলোচনা সভায় বক্তরা বলেন, সাম্রাজ্যবাদী বৃটিশ আগ্রাসনের পূর্বে পার্বত্য চট্টগ্রাম স্বাধীন রাজ্য ও সকল জাতিসত্তার স্বকীয়তা বজায় ছিল। কিন্তু বৃটিশ সরকার ১৮৬০ সালের ১ আগস্ট স্বাধীন রাজ্যকে জেলায় উন্নীতকরণের মাধ্যমে তাদের ঔপনিবেশিক শাসন কায়েম করে নানারকম অপকৌশল চালিয়ে যেতে থাকে। তাদের এই অপকৌশলের বিরুদ্ধে পার্বত্য চট্টগ্রামে বসবাসরত সকল জাতিস্বত্তার মানুষ যৌথভাবে প্রতিরোধ গড়ে তোলে। যার কারণে বৃটিশ সরকার খুব সহজে পার্বত্য চট্টগ্রামে তাদের শাসন পাকাপোক্ত করতে অনেক সময় লেগে যায়।

বক্তারা আরও বলেন, সেই বৃটিশ থেকে শুরু করে পার্বত্য চট্টগ্রামের উপর আগ্রাসন এখনো কমেনি। স্বাধীন বাংলাদেশেও পার্বত্য চট্টগ্রামে সকল জাতিসত্তার ন্যায্য অধিকার অন্দোলনকে দমিয়ে রাখার জন্য নানারকম অপকৌশল জারি রয়েছে। পূর্ণস্বায়ত্তশাসনের আন্দোলনকে বানচাল করার জন্য প্রতিনিয়ত অন্যায়ভাবে ধরপাকড়, হত্যা, গুম, মিথ্যা মামলা, ভূমি বেদখলসহ নানা নিপীড়ন জারি রাখা হয়েছে।

সভায় বক্তারা বলেন, অতীতের ইতিহাস থেকে শিক্ষা নিয়ে সকল আগ্রাসন প্রতিহত করে পার্বত্য চট্টগ্রামের একমাত্র রাজনৈতিক সমাধান পূর্ণস্বায়ত্তশাসন প্রতিষ্ঠার আন্দোলনকে বেগবান করার জন্য ঐক্যবদ্ধভাবে সংগ্রাম চালিয়ে যেতে হবে।


সিএইচটি নিউজে প্রকাশিত প্রচারিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি ,ভিডিও, কনটেন্ট ব্যবহার করতে হলে কপিরাইট আইন অনুসরণ করে ব্যবহার করুন।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.